জীবনানন্দের মানচিত্র

লেখক সম্পর্ক
সাধারণত বইয়ের পর্যালোচনায় লেখকের আলোচনা অপ্রাসঙ্গিক বটে। লেখক কে দিয়ে বইকে যাচাই করা যায় না। কিন্তু জীবনানন্দের মানচিত্র বইয়ের লেখক আমীন আল রশীদ সম্পর্কে কিছু তথ্য বইয়ের সাথে আলোচনার গুরুত্ব রাখে। কারণ, কবি জীবনানন্দ দাশ শঙ্খচিল, শালিকের বেশে বাংলার যে ধানসিড়ি নদীর তীরে আসতে চেয়েছে ,সে ধানসিঁড়ি নদীর ঝালকাঠিতে লেখকের জন্ম। আর সবচাইতে যে তথ্যটি একটু নীরবভাবে নাড়া দিবে তা হচ্ছে; লেখক পড়ালেখা করছেন জীবনানন্দের মাড়িয়ে যাওয়া বরিশাল ব্রজমোহন কলেজে।
বইটি সম্পর্কে
জীবনানন্দ দাশকে নিয়ে নানা রকম বই আছে। লেখকদের কেউ কেউ জীবনানন্দ দাশের রহস্যময় জীবনযাপন উদঘাটন করছেন।কেউ কবিতার ব্যাখা বিশ্লেষণ করছেন। আবার নানা ধরনের সম্পাদিত বইও পাওয়া। কিন্তু জীবনানন্দের মানচিত্র বইটি ভিন্ন ধরনের।এই বইটি শ্রেফ একটি মানচিত্র।
দুই বাংলা মিলিয়ে কবি জীবনানন্দ দাশ তাঁর জীবদ্দশায় যেসব জায়গায় বিচরণ করেছেন, সেসব স্থানকে একটা মানচিত্রে নিয়ে এসে লেখক অতীতের সাথে বর্তমানের একটা তুলনার ছক এঁকেছেন। আর এই ছক আঁকতেই লেখকের লেগেছর প্রায় ষোলো বছর।
প্রচ্ছদ
সব বইয়ের প্রচ্ছদ বইয়ের সম্পর্কে ধারণা দেয়।সুন্দর ও অর্থবহ প্রচ্ছদ পাঠককে বইয়ের প্রতি আকৃষ্ট করে।জীবনের মানচিত্র বইটির প্রচ্ছদ আকৃষ্ট করার মত।প্রচ্ছদশিল্পী তাপস কর্মকার।শিল্পী খুব সুন্দরভাবে জীবনানন্দের মুখয়াভব, বরিশালের ব্রজমোহন স্কুল, কলকাতা শহলে ভাড়া বাড়ি আর ট্রামকে ফুটিয়ে তুলেছেন।একটার সাথে আরেকটার সম্পর্ক কি ওতপ্রোতভাবে জড়িত!
জীবনানন্দের মানচিত্র
এ বইটি জীবনানন্দ ও জীবনানন্দ দাশের সাহিত্য বিশ্লেষণমূলক কোন বই নয়।না কোন জীবনচরিত বই। এ বইটি জীবনানন্দের জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত যেসব জায়গায় বিচরণ করেছেন, থেকেছেন, কর্মজীবন অতিবাহিত করেছেন, সেসব জায়গায় জীবনানন্দ দাশকে আবিষ্কার করে একটি মানচিত্র গঠন। আরও স্পষ্ট করে বলতে গেলে এ বইটি বর্তমান সময়ে জীবনানন্দের ছোঁয়া লাগা জায়গাগুলো কি অবস্থায় আছে তা খুঁজে বের করার এক ভ্রমণকাহিনী।
জীবনানন্দ প্রেমিরা সবসময় মনে একটা সংকল্প রাখে। তা হচ্ছে-বরিশাল,কলকাতার যেসব রাস্তায় জীবনানন্দ দাশ হেঁটেছেন, সেসব জায়গায় ক্ষণিকের জন্য একটু বিচরণ করে জীবনানন্দকে অনুভব করা। বরিশালের সর্বানন্দ ভবন, ব্রজমোহন স্কুল, বিএম কলেজ, বরিশালের কীর্তনখোলা, ধানসিড়ি নদী, স্টিমারঘাট, লাশকাটা ঘর, কলকাতার ১৮৩ ল্যান্সডাউন রোডের বাড়ি, রাসবিহারী এভিনিউ, প্রেসিডেন্সি বোর্ডিং, প্রেসিডেন্সি কলেজ, বেচু চ্যাটার্জি স্ট্রিট, বুদ্ধদেব বসুর কবিতা ভবন, স্বরাজ, পূর্বাশা, চতুরঙ্গ, ময়ূখ পত্রিকার অফিস, এসব জায়গায় জীবনানন্দ দাশকে খুঁজতে পাঠকগণকে লেখক এক মানচিত্রের সন্ধান দিয়েছেন।যে মানচিত্র ধরে হাঁটলে পাওয়া যাবে জীবনানন্দ দাশকে, অনভব করা যাবে এক শতাব্দী পূর্বের সময়কে, জানা যাবে সেসব জায়গা কতটুকু মনে রেখেছে জীবনানন্দ দাশকে।
বইয়ের নাম : জীবনানন্দের মানচিত্র
লেখক : আমীন আল রশীদ
প্রকাশনী : ঐতিহ্য
পৃষ্ঠা সংখ্যা : ২৩৫
মুদ্রিত মূল্য : ৫৯৫৳
  • গ্রন্থ সমালোচক : মেহেদী হাসান

আরো দেখুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

যুক্ত হউন

21,994FansLike
2,943FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

সর্বশেষ